ঝাঁপা বাঁওড়ে সাঁতার কাটতে নেমে এক কলেজছাত্র নিখোঁজ,উদ্ধার অভিযান স্থগিত - Jashore Tribune

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Thursday, February 11, 2021

ঝাঁপা বাঁওড়ে সাঁতার কাটতে নেমে এক কলেজছাত্র নিখোঁজ,উদ্ধার অভিযান স্থগিত

 


মণিরামপুরের রাজগঞ্জ ঝাঁপা বাঁওড়ে সাঁতার কাটতে নেমে এক কলেজছাত্র নিখোঁজ হয়েছেন।ছয় ঘন্টা ধরে তাকে উদ্ধার অভিযান চালায় ফায়ার সার্ভিস ও খুলনা থেকে আসা ডুবুরি দল।  

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় উদ্ধার অভিযান সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছেন ফায়ারসার্ভিস যশোর অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক আনোয়ারুল হক।
আগামীকাল শুক্রবার সকাল থেকে আবার উদ্ধার কাজ শুরু করবেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। উদ্ধার অভিযানে অংশ নেওয়া মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের লিডার আব্দুল আজিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এরআগে বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বেলা পৌনে ১২ টায় ঝাঁপা বাঁওড়ে নিখোঁজ হন শোয়েব। এরপর দুপুর একটা থেকে মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এবং বিকেল সাড়ে তিনটায় খুলনার তিন সদস্যর ডুবুরি দল উদ্ধার কাজে নামেন।

শোয়েব যশোর সরকারি সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র। সে যশোরের পুরাতন কসবা এলাকার শাহিন হোসেনের ছেলে। তার পিতা ঈগল পরিবহনের সুপারভাইজার।
বৃহস্পতিবার সকালে যশোরের একটি কোচিং সেন্টার থেকে ১৮ জন কলেজ শিক্ষার্থী রাজগঞ্জ বাজার সংলগ্ন ঝাঁপা বাঁওড়ের পশ্চিমপাড়ে পিকনিকে আসেন। এরপর তারা সবাই জেলাপ্রশাসক ভাসমান সেতুর পাশ থেকে নৌকায় চড়ে বাঁওড় ভ্রমণে বের হন। নৌকাটি রাজগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নিকটে পৌঁছুলে শোয়েব, তন্ময় ও রিফাত তিনবন্ধু নৌকা থেকে পানিতে লাফিয়ে পড়েন। তাদের মধ্যে তন্ময় ও রিফাত তীরে উঠে আসলেও নিখোঁজ হন শোয়েব।

মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের লিডার আব্দুল আজিম বলেন, দুপুর একটার দিকে আমরা বাঁওড়ে উদ্ধার কাজে নেমেছি। ব্যর্থ হয়ে খুলনা থেকে আমাদের ডুবুরি দলকে খবর দেওয়া হয়েছে। তিনজন ডুবুরি তিনঘন্টা উদ্ধার কাজ চালিয়েছেন। নিখোঁজ ছাত্রের সন্ধান পাওয়া যায়নি। আপাতত উদ্ধার কাজ সমাপ্ত করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে আবার কাজ শুরু করা হবে।
এদিকে নৌকা থেকে লাফিয়ে পড়া তিনবন্ধুর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। তাতে দেখাগেছে বন্ধুদের সাথে ফুর্তি করতে করতে জামা খোলেন শোয়েব,তন্ময় ও রিফাত। পরে হাসতে হাসতে তারা একে একে পানিতে ঝাঁপ দেন।

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad