বেপরোয়া গতি,বারবাজারে গড়াই পরিবহন ও ট্রাকের সংঘর্ষে ১০ জনের মৃত্যু - Jashore Tribune

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, February 10, 2021

বেপরোয়া গতি,বারবাজারে গড়াই পরিবহন ও ট্রাকের সংঘর্ষে ১০ জনের মৃত্যু

 




ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে দশজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৩৫ জন। বুধবার বিকেল ৩টার দিকে যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের বারবাজার এলাকায় মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল এবং কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এনকে আলম বলেছেন, গুরুতর আহতদের মধ্যে দশজনকে বুধবার বিকেল ৪টায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশংকাজনক।

যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তিরা হলেন ঢাকার ধানমন্ডি জিগাতলার রফিকুল ইসলামের ছেলে সিফাত (১৫) ও তার বোন মিথিলা (২১), ঝিনাইদহের লাউঝিরা গ্রামের খঞ্জের আলীর ছেলে আব্দুর রহিম (২৪), কালীগঞ্জ বারবাজারের আব্দুল আজিজ (২৭), কোটচাঁদপুরের রামচন্দ্রপুর গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে মাহফুজ (২৫), কোটচাঁদপুর আড়পাড়ার মুজিবুল্লার ছেলে আলম (৩০), আড়পাড়ার শান্তা (২৭), ঝিনাইদহের তাহেরহুদা গ্রামের বিউটি (২৮), কোটচাঁদপুরের কাঁঠালিয়া গ্রামের কাবিল (৩০) ও কালীগঞ্জের একতারপুর গ্রামের শিমুল (২৬)।
এদের মধ্যে আব্দুল আজিজসহ তিনজনের অবস্থা আশংকাজনক।

বাসের যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার বিকেল ৩টার দিকে কুষ্টিয়াগামী গড়াই পরিবহনের একটি বাস যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের বারবাজারের আমজাদ আলী ফিলিং স্টেশনের সামনে গেলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাসের সাথে সংঘর্ষ হয়। সাথে সাথে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার ওপর আড়াআড়ি উল্টে যায়।

তারা বলেন, বাসটি উল্টে যাওয়ার পর ভেতরে যাত্রীরা আটকা পড়েন। তাদের আর্তচিৎকারে আশপাশ থেকে মানুষ ছুটে এসে উদ্ধারে নেমে পড়েন। এর মধ্যে হতাহতদের রক্তে রাস্তার কালো পিচ লাল হয়ে ওঠে। এলাকাবাসী সাথে সাথে ঘটনাটি কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসকে জানান।
কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মামুনুর রশিদ জানান, খবর পেয়ে তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছান। সেখানে যেয়ে গড়াই পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্রো গ-১১০২১৪) রাস্তার ওপর উল্টানো অবস্থায় দেখা যায়। বাস থেকে দশটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তিনি জানান, স্থানীয় মানুষ ও পুলিশের সদস্যরা তাদেরকে উদ্ধারে সহযোগিতা করেন।

বাসের যাত্রীরা জানান, আগে থেকেই দুর্ঘটনাকবলিত গড়াই পরিবহনের বাসটির চালক বেপরোয়া গতিতে বাসটি চালাচ্ছিলেন। ট্রাকের সাথে বাসটির আলতো সংঘর্ষ হলে চালক আর নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি। সে কারণে বাসটি রাস্তার ওপর উল্টে যায়।

এদিকে, দুর্ঘটনার পর পরই যশোর-ঝিনাইদহ সড়কে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ঘটনাকবলিত বারবাজারে রাস্তার দু’পাশে কয়েকশ’ যানবাহন আটকা পড়ে। এসময় যাত্রীরা দুর্ভোগের শিকার হন। অনেক যাত্রী বাস থেকে নেমে অপর প্রান্তে যেয়ে নসিমন, করিমন, ইজিবাইকসহ ছোটখাটো যানবাহনে গন্তব্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করেন। উদ্ধার তৎপরতার পর বিকেল ৫টার দিকে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করে দেয় পুলিশ।

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad